Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

‘কি’ এবং ‘কী’

প্রত্যাহিক জীবনে আমরা ‘কি’ এবং ‘কী’ নিয়ে শুনতে মজার এমন কিছু প্রশ্নের সম্মুখীন হই যেমন-

কি না কী?
কী নাকি কি ?
difference between কি and কী?
কি বনাম কী? ইত্যাদি।

এই পোস্টটি ধৈর্য্য ধরে এক-দুইবার পড়লে আজ থেকে আপনার আর সমস্যা হবার কথা নয়। শেষে দেখব কখন ‘কে’ স্বতন্ত্র পদ হিসাবে বা অন্য পদের সাথে একত্রে লেখব। যাই হোক প্রথমেই দেখি ‘কি’ এবং ‘কী’ মধ্যে কোন পার্থক্য আছে কি না?

কি আর কী মধ্যে পার্থক্য

‘কি’ একটি অব্যয় পদ।
‘কী’ সর্বনাম, বিশেষণ, বিশেষনের-বিশেষণ ও ক্রিয়া বিশেষণ হিসাবে ব্যবহার হতে পারে।

‘কি’ এবং ‘কী’ এর সঠিক ব্যবহার

‘কি’ ও ‘কী’ এর সঠিক ব্যবহার একটা প্যাঁচ। প্রমিত বানানরীতি অনুযায়ী-‘কি’ ও ‘কী’ এর ব্যবহার সহজভাবে মনে রাখার জন্য কতোগুলো কৌশল প্রয়োগ করা যেতে পারে।

১. একটি কৌশল হলঃ যেসব প্রশ্নের জবাব ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ দ্বারা দেয়া যায়, অথবা মাথা নেড়ে বা সার্বজনীন ইশারায় দেওয়া যায় সেক্ষেত্রে ‘কি’ ব্যবহৃত হবে। যেমন:

সে কি আমাকে চেনে?
তোমার প্রস্তাব কি যুক্তিযুক্ত?
আবির কি গিয়েছিলে?

মনে রাখা দরকার যে, এভাবে ব্যবহৃত এই ‘কি’ শব্দটি হচ্ছে অব্যয় পদ।

২. আরেটি কৌশল হল; যেসব প্রশ্নের জবাব ‘হ্যাঁ’ বা ‘না’ দ্বারা দেয়া যায় না, অথবা মাথা নেড়ে বা সার্বজনীন ইশারায় দেওয়া যায়না সেক্ষেত্রে ‘কী’ ব্যবহৃত হবে। যেমন:

মনে রাখা দরকার যে, এভাবে ব্যবহৃত এই ‘কী’ শব্দটি হচ্ছে সর্বনাম পদ।

৩. সর্বনাম, বিশেষণ ও ক্রিয়া-বিশেষণ পদরূপে ‘কী’ লিখতে হবে। অর্থাৎ এক্ষেত্রে ‘ক’ এর সাথে ই-কার না বসে ঈ-কার বসবে। যেমন:
সর্বনাম

কী করছ? কী পড়ো?
কী খেলে? কী আর বলব?
তুমি কী খাবে?
কী জানি? কী যে করি!

বিশেষণ

তোমার কী? এটা কী বই?
কী আনন্দ! কী দুরাশা! কী আশ্চর্য!
কী আনন্দ!
কী শোভা কী মায়া গো
বাবা মেয়েকে কী আদর করেন!

বিশেষণের বিশেষণ
কী সুন্দর! কী অপরূপ!

ক্রিয়া-বিশেষণ

কী করে যাব? কী বুদ্ধি নিয়ে এসেছিলে।

কী রূপ( মনে রাখবেন ‘কিরূপ’ একটি বিশেষণ যার অর্থ ‘কী প্রকার’ বা ‘কী রকম’। ‘কিরূপ’-এ কি স্বতন্ত্র পদ হিসাবে ব্যবহার হয়নি, কিন্তু ‘কী প্রকার’ বা ‘কী রকম’ উদাহরণগুলোতে ‘কী’ স্বতন্ত্র পদ(বিশেষণ) হিসাবে ব্যবহৃত হয়েছে। )

কীভাবে? (কীভাবে বানানটি নিয়ে মতদ্বৈততা আছে, কেউ বলেন এটা হবে ‘কিভাবে’)

৪. অব্যয় পদরূপে ‘কি’ লিখতে হবে। অর্থাৎ অব্যয় পদের ক্ষেত্রে ‘ক’ এর সাথে ঈ-কার না বসে ই-কার বসবে। যেমন:

তুমিও কি যাবে?
সে কি এসেছিল?
কি বাংলা কি ইংরেজি উভয় ভাষায়ই তিনি পারদর্শী।
কি বালক কি বৃদ্ধ। কি শীত কি গ্রীষ্ম।

সংশয়সূচক প্রশ্নবোধক

তুমি কি যাবে?
সেও কি আসবে?
তুমি কি সেখানে যাবে?

সংশয়, বিতর্ক, প্রশ্ন ইত্যাদি সূচক শব্দ

যাবে কি না বলো,
করবে কি না জানি না।
তুমি কি যাবে?

৫. অন্য বর্ণের সাথে একসঙ্গে ‘কি’ এর ব্যবহার হয়। যেমন:

কিনা- টাকা দেবে কি না জানি না।
নাকি- তোমার ভাই পাগল নাকি?
কিরে- কিরে বাঙ্গাল, ভাত খাবা না?
কিসে- হাহা কিসে কী হল। (‘কি’ ও ‘কী’ একসঙ্গে লেখা। এখানে ‘কী’ বিশেষণ)
তুমি তো খুব বুদ্ধিমান, ঠিক কি না?।

৬. ‘কে’ এবং ‘-কে’ ব্যবহার:
প্রশ্নবোধক অর্থে ‘কে’ (ইংরেজিতে Who অর্থে) সর্বনাম হিসাবে ব্যবহার হয়। তা একটি স্বতন্ত্র পদ হয়। যেমন—

হৃদয় কে?
কে ভাল কে মন্দ তাতে তোমার কি?
তিনি তোমার কে?
কে কে যাবে? (কোন কোন ব্যক্তি বা কারা বুঝাতে)

প্রশ্ন করা বোঝায় না এমন শব্দে ‘-কে’ এক সাথে ব্যবহার হবে। যেমন—
হৃদয়কে আসতে বলো।

বেলা যে পড়ে এল জলকে চল।
গুরুকে দক্ষিণা দিয়ে ঘরকে গমন।
সেরকে এক ছটাক কম।
কেবা জানে। বোধহয় কেউ না। – সর্বনাম হিসাবে।

Add a Comment