Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

পশ্চিমবঙ্গের নতুন নাম ‘বাংলা’

পশ্চিমবঙ্গের নতুন নাম বাংলা হচ্ছে। ২৬ জুলাই ২০১৮ রাজ্য বিধানসভায় বাংলা নামের পক্ষে বাম-কংগ্রেস-তৃণমূল সব দলের বিধায়ক সম্মত হন। আগে বাংলায় বাংলা, হিন্দিতে বাঙাল এবং ইংরেজি বেঙ্গল হিসেবে তিনটি নামের প্রস্তাব পাঠানো হয়। পশ্চিমবঙ্গের সরকারি নাম এবার থেকে শুধুই ‘বাংলা’। হিন্দি, বাংলা এবং ইংরেজি- এই তিন ভাষাতেই রাজ্যের সরকারি নাম হবে বাংলা।

নাম পরিবর্তনের কারণঃ

মমতা ব্যানার্জি রাজ্যের ইংরেজী নাম ‘ওয়েস্ট বেঙ্গল’ নিয়ে বেশ বিরক্ত। আর এটিই রাজ্যের নাম পরিবর্তনের একটা প্রধান কারণ। রাজ্যের নাম ইংরেজীতে ওয়েস্ট বেঙ্গল হওয়ার কারণে দিল্লীতে যখন সব রাজ্যকে নিয়ে কোন সম্মেলন হয় তখন ইংরেজী বর্ণানুক্রমে রাজ্যগুলোকে ডাকা হয়। ডব্লিউ দিয়ে শুরু ওয়েস্ট বেঙ্গলের নাম আসে সবার শেষে। এই জন্য পশ্চিমবঙ্গকে দিল্লীতে অনেক অসুবিধায় পড়তে হচ্ছে বলেই মমতা ব্যানার্জি সরকার মনে করছে। রাজ্যের নাম বেঙ্গল রাখা হলে ইংরেজী বর্ণানুক্রমে সেটি তালিকায় অনেক ওপরের দিকে উঠে আসবে, বিকল্প নাম প্রস্তাব করার ক্ষেত্রে সেই ভাবনাটিও কাজ করেছে।

শুরুর কথা
১৯৯৯ সালে জ্যোতি বসুর নেতৃত্বাধীন তৎকালীন বামফ্রন্ট সরকার প্রথম ‘বাংলা’ নামের প্রস্তাব পেশ করে। তাছাড়া রাজ্যে নাম পরিবর্তনের বিষয়ে ২০১৬ সালে পরামর্শ দিয়েছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেছিলেন, বাংলা’তে রাজ্যের নাম হোক ‘বাংলা’। হিন্দিতে হোক ‘বঙ্গাল’ এবং ইংরেজিতে হোক ‘বেঙ্গল’। সেই প্রস্তাব কেন্দ্রের কাছেও দেওয়া হয়েছিল। কেন্দ্র থেকে ওই সময় পরামর্শ দেওয়া হয় যে কোনও একটি নাম রাখার।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নাম পরিবর্তনের প্রস্তাব ২০১৬ সালের ২৯ আগস্ট বিধানসভায় পাস হয়েছে। বিরোধীদল কংগ্রেস ও বিজেপির ওয়াকআউটের মধ্যে এই নাম বদলের প্রস্তাব পাস করল রাজ্যের ক্ষমতাসীন তৃণমূল কংগ্রেস সরকার। প্রস্তাবের পক্ষে ১৮৯ এবং বিপক্ষে ৩১ ভোট পড়েছে। শুধু কেন্দ্রীয় সরকার ও রাষ্ট্রপতির অনুমোদন পেলেই পশ্চিমবঙ্গের নাম সরকারীভাবে হবে ‘বাংলা’। প্রস্তাবে বাংলাদেশের প্রতিবেশী ভারতের এই রাজ্যটির নাম ‘বাংলা’, হিন্দীতে ‘বঙ্গাল’ আর ইংরেজীতে ‘বেঙ্গল’ বলতে হবে।

প্রস্তাব পাস হওয়ার পর রাজ্যটির মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বলেন, আমরা বাংলা নাম রাখার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। আমরা কেন্দ্রীয় সরকারকে অনুরোধ করেছি যাতে তারা এই প্রস্তাব গ্রহণ করে। আমরা আশা করব সংসদের পরবর্তী অধিবেশনে এই প্রস্তাবটি পাস করা হবে। মমতা বলেন, বঙ্গ নামটি আমিও পছন্দ করি। কিন্তু বাংলা নামটিই সকলের মুখে মুখে বেশি শোনা যায়। সাধারণ মানুষ বাংলা কিংবা বেঙ্গল থেকে আসছি বলেই বাইরে গিয়ে কথা বলেন। ফলে সাধারণ মানুষের কাছে ‘বঙ্গ’ থেকে ‘বাংলা’ নামটিই বেশি গ্রহণযোগ্য বলে দাবি তার। এ সময় ভারতের এই রাজ্যের জন্য একটা নতুন লোগো তৈরি করা হবে বলে ঘোষণা দেন মমতা।

কংগ্রেস ও বিজেপির ওয়াকআউট বিষয়ে মমতা বলেন, আজকে যারা এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করল ইতিহাস তাদের ক্ষমা করবে না। আজকের এই ঐতিহাসিক দিনটি স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। ভারতের যুক্তরাষ্ট্রীয় কাঠামোতে কোন রাজ্যের নাম পরিবর্তন করতে হলে তাতে লোকসভার অনুমোদন প্রয়োজন হয়। অতীতেও পশ্চিমবঙ্গের নাম পরিবর্তনের দাবি উঠেছিল একাধিকবার, কিন্তু কখনওই শেষ পর্যন্ত তা বাস্তবায়িত হয়নি।

সমালোচনাঃ এই প্রস্তাবের বিরোধিতা করে বিজেপির রাজ্য প্রধান দিলিপ ঘোষ বলেছেন, এই প্রস্তাব যাতে কেন্দ্রে পাস না হয় এ জন্য আমরা সরকারকে অনুরোধ জানাব। তিনি বলেন, এটি পাস হলে ১৯৪৭ সালের দেশভাগের স্মৃতি মুছে যাবে।

অনেক ঐতিহাসিক এই নাম পরিবর্তনের বিরোধিতা করে বিবৃতি দিয়েছেন। তারা বলছেন, পশ্চিমবঙ্গ নামের মধ্যে ‘পশ্চিম’ শব্দটি দেশভাগের করুণ ইতিহাসের স্মৃতি বহন করে। সেটা অযথা মুছে ফেলার কোন মানে হয় না।

সংগ্রহ : মাসুদ From Zakir’s BCS Specials

Add a Comment