Oops! It appears that you have disabled your Javascript. In order for you to see this page as it is meant to appear, we ask that you please re-enable your Javascript!

২৭তম বিসিএস লিখিত প্রশ্ন বাংলা প্রথম পত্র

সাধারণ বাংলা (আবশ্যিক) – প্রথম পত্র সময় : ৩ ঘন্টা
পূর্ণমান – ১০০
[দ্রষ্টব্য :- বাংলা ভাষায় প্রশ্নের উত্তর দিতে হবে। তবে টেকনিক্যাল শব্দগুলো ইংরেজিতে লেখা চলবে। প্রত্যেক প্রশ্নের মান প্রশ্নের শেষ প্রান্তে দেখানাে হয়েছে।]

১. ভাবসম্প্রসারণ করুন : ২০

ক. মানুষ বাঁচে তার কর্মের মধ্যে, বয়সের মধ্যে নয়।
অথবা,
খ. পুষ্প আপনার জন্য ফোটে না।

২. সারমর্ম লিখুন : ২০
মহাসমুদ্রের শত বৎসরের কল্লোল কেহ যদি এমন করিয়া বাঁধিয়া রাখিতে পারি যে, সে ঘুমন্ত শিশুটির মত চুপ করিয়া থাকিত, তবে সেই নীরব মহাশব্দের সহিত এই পুস্তকাগারের তুলনা হইত। এখানে ভাষা চুপ করিয়া আছে, প্রবাহ স্থির হইয়া আছে, মানবাত্মার অমর অগ্নি কাল অক্ষরের শৃঙ্খলে কাল চামড়ার কারাগারে বাঁধা পড়িয়া আছে। ইহারা সহসা যদি বিদ্রোহী হইয়া উঠে, নিস্তব্ধতা ভাঙ্গিয়া ফেলে, অক্ষরের বেড়া দগ্ধ করিয়া একবার বাহির হইয়া আসে, কালের শঙ্খ-রন্ধ্রে এই নীরব সহস্র বৎসর যদি এককালে ফুৎকার দিয়া উঠে, তবে সে বন্ধনমুক্ত উচ্ছসিত শব্দের স্রোতে দেশ-বিদেশ ভাসিয়া যাইত। হিমালয়ের মাথার উপরে কঠিন তুষারের মধ্যে যেমন শত শত বন্যা বাধা পড়িয়া আছে, তেমনি এই পুস্তকাগারের মধ্যে মানব হৃদয়ের বন্যাকে বাঁধিয়া রাখা হইয়াছে। বিদ্যুৎকে মানুষ লোহার তার দিয়া বাঁধিয়াছে। কিন্তু কে জানিত মানুষ শব্দকে নিঃশব্দের মধ্যে বাঁধিতে পারিবে। কে জানিত সঙ্গীতকে, হৃদয়ের আশাকে, জাগ্রত আত্মার আনন্দ-ধ্বনিকে, আকাশের দৈববাণীকে সে কাগজে পুরিয়া রাখিবে। অতলস্পর্শ কাল সমুদ্রের উপর কেবল একখানা বই দিয়া সঁকো বাঁধিয়া দিবে।

অথবা,

এ দুর্ভাগ্য দেশ হতে, হে মঙ্গলময়,
দূর করে দাও তুমি সর্ব তুচ্ছ ভয়
লোকভয়, রাজভয়, মৃত্যুভয় আর।
দীনপ্রাণ দুর্বলের এ পাষাণভার,
এই চির পেষণ যন্ত্রণা, ধূলিতলে
এই নিত্য অবনতি, দণ্ডে পলে পলে
এই আত্ম-অবমান, অন্তরে বাহিরে
এই দাসত্বে রজ্জু, অস্ত নতশিরে
সহস্রের পদপ্রান্ততলে বারম্বার
মনুষ্যমর্যাদাগর্ব চির পরিহার –
এ বৃহৎ লজ্জারাশি চরণ-আঘাতে
তত চূর্ণ করি দূর করো।

৩. শুদ্ধ করে লিখুন :

ক. তিনি শহীদ মিনারে শ্রদ্ধাঞ্জলী অর্পণ করেছেন। (প্রদান)
খ. জাপান একটি সমৃদ্ধশালী দেশ। (সমৃদ্ধ)
গ. কাব্যটির উৎকর্ষতা প্রশংসনীয়। (উৎকর্ষ/উৎকৃষ্টতা)
ঘ. রবীন্দ্রনাথ ভয়ঙ্কর প্রতিভাবান কবি ছিলেন।(অত্যন্ত)
ঙ. তার কথার সঙ্গে কাজের সমাঞ্জস্যতা নেই। (সামঞ্জস্য)
চ. দারীদ্রতাই মধুসূদনের শেষ জীবনের বৈশিষ্ট্য। (দরিদ্রতাই/দারিদ্র্যই)
ছ, দূর্জন বিদ্যান হলেও পরিত্যজ্য।(দুর্জন বিদ্বান হলেও পরিত্যাজ্য)
জ. নেপালের ভৌগলিক সীমা বর্ণনা কর। (ভৌগোলিক)
ঝ. সে কৌতুক করার কৌতুহল সম্বরন করতে পারল না।(কৌতূক, সংবরণ)

৪. উপযুক্ত শব্দ বা শব্দসমষ্টি দিয়ে শূন্যস্থান পূরণ করুন :

ক. গরিবের গায়ে — —- ভাল নয়। (হাত তোলা)
খ. — আছে বলে চাকরটাকে বিদায় করে দিয়েছি। (হাতটান)
গ. রাজায় রাজায় যুদ্ধ হয়, — — প্রাণ যায়।(উলুখাগড়ার)
ঘ. আমার সন্তান যেন থাকে — —। (দুধে ভাতে)
ঙ. তপ্ত ভাতে নুন জোটে না, — — ঘি।(পান্তা ভাতে)

৫. যে কোন পাঁচটি বাগধারা দিয়ে বাক্য রচনা করুন :

ক. অকাল বোধন (অসময়ে আবির্ভাব) – কার্তিক মাসেও বাজারে পাট শাক পাওয়া যায় এ যে অকাল বোধন।।
খ. ঈদের চাঁদ (কাঙ্ক্ষিত বস্তু) – আমেরিকা প্রবাসী কন্যা-জামাতা ফিরে আসায় মা যেন ঈদের চাঁদ হাতে পেলেন।
গ. পাথরে পাঁচ কিল (অদৃষ্ট সুপ্রসন্ন) – লটারিতে কবীর তিন লাখ টাকা পেল। এখন তার পাথরে পাঁচ কিল।
ঘ. আমড়া কাঠের ঢেঁকি (অকেজো লোক) – রফিক একটা আমড়া কাঠের টেকি, তাকে ও অমন দায়িত্বপূর্ণ কাজ দিও না।
ঙ. গাছে কাঁঠাল গোঁফে তেল (প্রাপ্তির পূর্বে ভোগের আয়োজন) – কবীর বলেছে বিসিএস পাস করলে বন্ধুদের চাইনিজ খাওয়াবে এ যে গাছে কাঁঠাল গোঁফে তেল।
চ. চশমখোর (চক্ষু লজ্জাহীন ব্যক্তি) – চশমখোর না হলে কেউ হজ্ব কাফেলার টাকা সুদে খাটায়?
ছ. হাড়ে বাতাস লাগা (স্বস্তি পাওয়া) – সন্ত্রাসীটা ক্রসফায়ারে মরেছে এবার এলাকাবাসীর হাড়ে বাতাস লেগেছে।
জ. রগচটা (বদমেজাজী) – আমাদের অফিসের বড় সাহেব ভীষণ রগচটা, কাজে ফাঁকি দেয়ার জো নেই।
ঝ. সোনার পাথর বাটি (অসম্ভব বস্তু) – তোমার লেখা গল্পটা পড়ে সোনার পাথর বাটি মনে হল।
ঞ. ছেঁড়া চুলে খোপা বাঁধা (পরকে আপন করার চেষ্টা) – হঠাৎ করে আত্মীয়-অনাত্মীয়দের খোঁজখবর করা শুরু করল জামিল সাহেব, এ যে ছেঁড়া চুলে খোপা বাঁধার চেষ্টা মনে হয়।

৬. বাক্য রূপান্তর করুন-

ক. চরিত্রহীন লোক পশুর চেয়েও অধম।(জটিল বাক্য)
খ. যে মিথ্যাকথা বলে তাকে কেউ পছন্দ করে না।(সরল)
গ. তার প্রচুর ধনসম্পদ থাকলে সে সুখী নয়।(যৌগিক)
ঘ. মন দিয়ে লেখাপড়া কর ভবিষ্যতে সুখী হবে।(জটিল)
ঙ. যেহেতু তার ধনসম্পদ আছে তাই সে অত্যন্ত গর্বিত। (যৌগিক)

৭. যেকোন পাঁচটির বাংলা পরিভাষা দিয়ে বাক্য রচনা করুন-

ক. Allotment
খ. Bankrupt
গ. Charter
ঘ. Embergo(নিষেধাজ্ঞা)
ঙ. Ombudsman
চ. Referendum
ছ. Subjudice(বিচারাধীন)
জ. Inauguration
ঝ. Deadlock
ঞ. Enterprise

৮. নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দিন- ১.৫x২০=৩০

ক. বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন নিদর্শন কী? এটি কে, কখন, কোথায় আবিষ্কার করেন?
খ. বাংলা মঙ্গলকাব্য ধারার দুজন বিখ্যাত কবির নাম লিখুন, প্রত্যেকের একটি করে কাব্যের নাম সহ।
গ. রচয়িতার নাম সহ মধ্যযুগের তিনটি রোমান্টিক কাব্যের নাম লিখুন।
ঘ. ফোর্ট উইলিয়াম কলেজ কতসালে কী উদ্দেশ্যে স্থাপিত হয়।
ঙ. ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের প্রথম প্রকাশিত গ্রন্থ কী এবং এটি কত সালে প্রকাশিত হয়।
চ. বঙ্কিম চন্দ্রের তিনটি উপন্যাসের নাম লিখুন।
ছ . মধুসূদন দত্তের একটি মহাকাব্য, একটি পত্রকাব্য, ও একটি নাটকের নাম লিখুন।
জ. বিষাদ সিন্দু কার লেখা? তাঁর আর একটি গ্রন্থের নাম লিখুন।
ঝ. রবীন্দ্রনাথ কত সালে কোন গ্রন্থের জন্য নোবেল পুরস্কার লাভ করেন।
ঞ. ‘নীল দর্পন’ কে লিখেছেন তাঁর একটি বিখ্যাত প্রহসনের নাম লিখুন।
ট. জসিমউদ্‌দীনের তিনটি কাব্যের নাম লিখুন।
ঠ. নজরুলের জন্ম সাল ও মৃত্যু সাল লিখুন।
ড. ‘অবরোধবাসিনী’ কে লিখেছেন? তিনি কি হিসাবে বিখ্যাত?
ঢ. ফররুখ আহমদের দুটি কাব্যের নাম লিখুন।
ণ. কায়কোবাদের আসল নাম কী? তাঁর বিখ্যাত মহাকাব্যের নাম কী?
ত. বাংলাদেশের একজন কবি, একজন ঐপন্যাসিক ও একজন নাট্যকারের নাম লিখুন।
থ. বাংলাদেশের দুজন প্রধান কবি কে কে? তাদের প্রত্যেকের একটি করে কাব্যের নাম লিখুন।
দ. ‘কবর’ নাটক কে লিখেছেন? তাঁর আর একটি নাটকের নাম লিখুন।
ধ. সৈয়দ ওয়ালীউল্লাহ, শীদুল্লাহ কায়সার ও আবু ইসহাক এঁদের প্রত্যেকের একটি করে উপন্যাসের নাম লিখুন।
ন. ‘পিজরাপোল’, ‘জেগে আছি’ এবং ‘আত্মজা ও একটি কবরী গাছ’ গ্রন্থ তিনটির লেখকদের নাম লিখুন।

Add a Comment